নলছিটিতে খান মাইনুদ্দিনের বিদ্যুৎ চুরি প্রকৌশলীর বক্তব্যে আইনের ব্যাবস্থা নেওয়ার আশ্বাস

ব্যুরো চিফ বরিশাল ঃ
ঝালকাঠি জেলার নলছিটি উপজেলার দপদপিয়া ইউনিয়নের উত্তর জুরকাঠী গ্রামের মাইনুদ্দিন নামক

এক ব্যাক্তীর বসতগৃহের মিটার থেকে অবৈধ তার লাগিয়ে বিদ্যুৎ চুরি করাকালীন হাতে-নাতে ধরা পড়েছে। ঘরের আবাসিক মিটার থেকে মুরগীর খামারে বিদ্যুৎ ব্যবহারের গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ওজোপাডিকোর আবাসিক প্রকৌশলীর নির্দেশে তার অফিসের ষ্টাফ গত (২০ অক্টোবর) তারিখ ঘটনাস্থলে গিয়ে সত্যতা পেয়ে ছবি ও ভিডিওতে ধারণ করে।এ ঘটনার পর ওই খান মাইনুদ্দিনের পক্ষে নলছিটি উপজেলার কতিপয় অপ তদ্বীর চালিয়ে যাচ্ছে। নলছিটি উপজেলা ওয়েষ্টজোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশনের আবাসিক প্রকৌশলী ফিরোজ আহম্মেদ সন্যামত এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কোন আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি এবং জরিমানাও করেনি। এ ব্যাপারে নলছিটি উপজেলা ওয়েষ্টজোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন আবাসিক প্রকৌশলী ফিরোজ আহম্মেদ সন্যামত ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, নলছিটি উপজেলার দপদপিয়া ইউনিয়নের উত্তর জুরকাঠী গ্রামের আব্দুল আজিজ খানের পুত্র, এক সময়ের বরিশালের খান মাইনুদ্দীন তার নিজের নামের বিদ্যুতের মিটার থেকে অবৈধভাবে তার লাগিয়ে মুরগীর খামারে ব্যবহার করে আসছে এ ধরনের গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গত ২০ নভেম্বর অফিসের ষ্টাফ গিয়ে সত্যতা দেখতে পায়। যা ছবি তুলে ও ভিডিওতে ধারণ করা হয়েছে। এর প্রেক্ষিতে ওই বিদ্যুৎ গ্রাহক খান মাইনুদ্দীনকে আজ ২২ নভেম্বর ওই গ্রাহক অফিসে আসার পর বিদ্যুৎ আইন-২০১৮ সংশোধনী অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।বিদ্যুৎ আইন অনুযায়ী বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে বিদ্যুৎ চুরি করায় ৩ লক্ষ টাকা জরিমানা অথবা ৩ বছরের সাজার অথবা উভয় দন্ডে দন্ডিত করার বিধান রয়েছে।

খান মাইনুদ্দীন ২০১৮ সনের দিকে তার বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগ নেয়। মিটার নম্বর-৯৯০৩৪৯, হিসাব নম্বর -৯৭৩৩ ও তার গ্রাহক নম্বর-এ ২০৭১১৫২৯৭। এ বিষয়ে খান মাইনুদ্দীনের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায় নি।এদিকে ২২ নভেম্বর অফিস চলাকালীন সময়ে ওই গ্রাহক উপস্থিত হয়ে অপরাধ স্বীকার করলে জরিমানা করা হবে। আর অফিসে এসে অপরাধ স্বীকার না করলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে আবাসিক প্রকৌশলী ফিরোজ আহম্মেদ জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন

Monday, May 23, 2022

সর্বশেষ