লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে হত্যাকে ধামাচাপা দিতে ময়নাতদন্ত ছাড়াই নারীর লাশ দাফন !

কমলনগর(লক্ষ্মীপুর)সংবাদদাতা:লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে হাজেরা (২৮) নামের আশ্রিতা এক নারীর লাশ ময়নাতদন্ত ছাড়া দাফন করা হয়েছে। মৃত্যুর কারণ হত্যা না আত্মহত্যা এ নিয়ে স্থানীয়দের মাঝে প্রশ্ন উঠেছে। এলাকাবাসীর ধারনা একটি মহল হত্যাকে ধামাচাপা দিতে ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ দাফন করে ।

মঙ্গলবার (২১ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে ময়নাতদন্ত ছাড়াই করইতলা বাজার সংলগ্ন আলী খলিফা মিয়ার পারিবারিক কবরস্থানে স্থানীয় চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে লাশ দাফন করা হয়।

এর আগে সকালে উপজেলার চর রলেন্স ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের  মোস্তাফা কোম্পানী বাড়ির সুরু একটি আম গাছের সাথে চিকন রশিতে বাঁধা বসা অবস্থায় ওই নারীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত হাজেরা নাম ছাড়া বিস্তারিত পরিচয় পাওয়া যায়নি। কিছুদিন আগে ওই এলাকার মৃত মোস্তাফা কোম্পানির স্ত্রী রহিমা সুলতানা বাড়ির একটি পরিত্যাক্ত ঘরে হাজেরাকে আশ্রয় দেন।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, বসতঘরের দক্ষিণ পাশে টিউবওয়েল পাশে ছোট একটি আমের চারা। গাছের ধারন ক্ষমতা হীন সরু একটি ডালে চিকন রশি গলায় প্যাচানো অবস্থায় টিউবওয়েলের সিড়িতে বসা অবস্থায় রয়েছে মৃতদেহ। এমন পরিস্থিতি দেখে স্থানীয়রা আতœহত্যা মানতে রাজি নয়।

আশ্রয়দাতা রহিমা সুলতানা জানান, ১৮/২০ দিন আগে কিছুটা মানসিক ভারসাম্যহীন হাজেরা বেগম নামে ওই নারী তার বাড়িতে আসেন। এর পর থেকে সে বাড়ির একটি পরিত্যক্ত ঘরে বসবাস করে আসছেন। বাড়ি আশে পাশের লোকজন তাকে সাহায্য করতো। মঙ্গল সকালে তার লাশ দেখে স্থানিয়রা পুলিশে খবর দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে।

চর লরেন্স ইউনিয়নে চেয়ারম্যান একেএম নুরুল আমিন মাস্টার বলেন, বিষয়টি আতœহত্যা মনে হয়েছে। তার আতœীয়-স্বজন কিংবা পরিচিত কাউকে পাওয়া যায়নি। পুলিশের অনুমতি নিয়ে স্থানীয়া লাশ দাফন করে।

কমলনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি/তদন্ত) আলমগীর হোসেন বলেন, প্রাথমিক তদন্তে এটি আতœহত্যা মনে হয়েছে। ময়নাতদন্ত ছাড়া কেনো দাফন করা হয়েছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন চেয়ারম্যান বিষয়টি দেখবেন এই আশ্বাসে এবং আমার মনে হয়েছে ওই নারী ফাঁস দিয়ে আতœহত্যা করেছেন।

আরও পড়ুন

Wednesday, December 1, 2021

সর্বশেষ