রামগতির লঞ্চঘাটে বেপরোয়া চাঁদাবাজি, সন্ত্রাসের অভিযোগ

রামগতি (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি ঃ লক্ষ্মীপুরের রামগতির আলেকজান্ডার বদ্দার হাট লঞ্চঘাটে বে-পরোয়া চাঁদাবাজি, সন্ত্রাসী কর্মকান্ড, যাত্রীদের মালামাল লুট, নারী যাত্রীদের শ্লীলতাহানীর ব্যাপক অভিযোগ পাওয়া গেছে।
পৌর আলেকজান্ডারের মো: মোস্তফা মিয়ার ছেলে আল ফারুক গত শনিবার (৪ মার্চ) রামগতি থানা অফিসার ইনচার্জ বরাবরে দায়ের করা অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, তার মালিকানাধীন আলেকজান্ডার থেকে ভোলা জেলার হাকিম উদ্দিন (মির্জাকালু) রুটে চলাচলকারী এমভি রামগতি এক্সপ্রেস লঞ্চের মাধ্যমে দ্বীর্ঘদিন যাত্রী পারাপার করে আসছে। বিগত কিছুদিন থেকে আলেকজান্ডার ইউনিয়নের খোরশেদ মেম্বার বাড়ীর শাহাবুদ্দিনের ছেলে জহির উদ্দিন বাবর ও তার ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীরা আলেকজান্ডার ইউনিয়নের বদ্দার হাট লঞ্চঘাটে এক অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টি করিয়া রাখিয়াছে। তারা ঘাট হইতে লঞ্চ ছাড়ার পূর্বে লঞ্চপ্রতি দুই হাজার টাকা চাঁদা আদায় করে থাকে।

অন্যদিকে লঞ্চের টিকেটে যাত্রী প্রতি আশি টাকা হারে চাঁদা আদায় করে থাকে। যাত্রী সাধারনের পল্টুন পারাপারে বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃক নির্ধারিত জনপ্রতি ৫/=টাকা নেওয়ার কথা থাকলেও নেওয়া হচ্ছে ২০/=টাকা থেকে ৮০/=টাকা। এ বিষয়ে কোন যাত্রী প্রতিবাদ করিলে তাদের শারিরীকভাবে লাঞ্চিত করা হয়। অপরদিকে দুরপাল্লার যাত্রীরা রাতের শেষ দিকে ঘাটে এসে তাদের নিরাপত্তার স্বার্থে লঞ্চে আশ্রয় নেয়ার চেষ্টা করিলে এই চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা যাত্রীদের টাকা ও মূল্যবান মালামাল লুন্ঠন করে তাদের নানাভাবে লাঞ্চিত করে এবং নারী যাত্রীদের শারিরীকভাবে অপমান অপদস্ত করে।

অভিযোগে উল্লেখ করেন গত ২৩ মার্চ চর মোনাই পীরের মাহফিল থেকে রিজার্ভে যাত্রী পারাপার করে আসার পর তার কাছ থেকে ত্রিশ হাজার টাকা চাঁদা দাবী করে। দাবীকৃত চাঁদা না দিলে লঞ্চের মালিক ও তার ষ্টাফদের মারধর সহ নানান ধরনের হুমকি ধমকি দেয় সন্ত্রাসীরা।

তিনি অভিযোগে আরো উল্লেখ করেন তার লঞ্চের ষ্টাফ মোছলেহ উদ্দিন, মন্নান, বশির সহ অন্যান্যরা এ সমস্ত ঘটনার প্রতিবাদ করিলে তাদের বেদম মারধর করে এবং তারপর থেকে অদ্যবধি পর্যন্ত তার মালিকানাধীন এমভি রামগতি এক্সপ্রেস লঞ্চটি জোরপূর্বক ঘাটে বসাইয়া রাখে। এতে তার ব্যবসায়ীক বিরাট ক্ষয়ক্ষতি হয়। তিনি অভিযোগে উল্লেখ করেন এই ঘটনার প্রেক্ষিতে প্রায় তিন লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকা ক্ষতির সম্মুক্ষিন হয়েছেন্

বর্তমানে তারা একটি লঞ্চদ্বারা দুটি ঘাট নিয়ন্ত্রন করছে যার ফলে যাত্রী সাধারন অবর্ণনীয় দূর্দশার মধ্যে পড়েছেন। ভুক্তভোগী যাত্রীরা জানান অতিরিক্ত ভাড়া, চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসের কারণে আলেকজান্ডার-ভোলা দৌলতখা রুটে যাত্রী আশংকাজনক হারে কমে গেছে।
এ বিষয়ে রামগতি থানা অফিসার ইনচর্জ (ওসি) মো: ইকবাল হোসেন বলেন লিখিত অভিযোগ পেয়েছি, তদন্তপূর্বক দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন কর হবে।

আরও পড়ুন

Sunday, November 28, 2021

সর্বশেষ