রামগতিতে শিক্ষার্থীর শিক্ষা জীবন শেষ করলো অতিথি শিক্ষক

রামগতি (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি : লক্ষ্মীপুরের রামগতিতে মাসুদা বেগম নামের ১০ম শ্রেণীর এক শিক্ষার্থীর শিক্ষা জীবন শেষ করে দিলো বিদ্যালয়ের অতিথি শিক্ষক।

অতিথি শিক্ষক এরশাদ সূবর্ণ চর উপজেলার চর জব্বর ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের ছালাউদ্দিনের ছেলে। সে আজাদ নগর বাজারের টিন ব্যবসায়ী পোড়াগাছা ইউনিয়নের মালেক মোল্লা উচ্চ বিদ্যালয়ের অতিথি শিক্ষক হিসেবে নিয়োজিত । স্কুলে পাঠদানের সুযোগ পেয়ে ঐ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণীর বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী পোড়াগাছা ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডর মাইনউদ্দিন হুজুরের মেয়ে মাসুদার সাথে পরকীয়া প্রেম শুরু করে এক সন্তানের জনক এরশাদ। এক পর্যায়ে গত ১ মার্চ মাসুদাকে নিয়ে পালিয়ে যায় ঐ শিক্ষক। এ সময় বিভিন্ন হোটেলে রাত্রী যাপন করে ৪ দিন পর এলাকায় আসে।

ফিরে আসার পর স্থানীয়রা এরশাদকে পালিয়ে যাওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে বলেন আমরা বিয়ে করে ফেলেছি। সে স্থানীয়দের একটি কোর্টের এফিডেভিট দেখায় এবং বলে আমরা ৪ লক্ষ টাকা দেন মোহরে বিয়ে করেছি।

বিষয়টি নিয়ে গত ৭ মার্চ পোড়াগাছা মতিন সর্দারের বাড়ীতে শালিশী বৈঠক বসেন স্থানীয় ইউপি সদস্য গিয়াস উদ্দিন সহ গন্যমান্যরা। বৈঠকে সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে ২ লক্ষ টাকা খোরপোষ দিয়ে মেয়েটিকে তালাক দেয় এরশাদ।

মেম্বার গিয়াস উদ্দিন জানান উভয় পক্ষকে নিয়ে বিষয়টি আমরা সামাজিকভাবে মীমাংশা করে দিয়েছি। শালিশদাররা আরো জানান এফিডেভিটের একটি কাগজ দেখালেও কোন কাবিননামা দেখাতে পারেনি এরশাদ।

বর্তমানে লোকলজ্ঝার ভয়ে স্কুলে যাওয়া ছেড়ে দিয়েছে মাসুদা।

এ বিষয়ে মালেক মোল্লা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাজিম উদ্দিন বলেন আমার স্কুলের ছাত্রীকে নিয়ে গেষ্ট টিচার এরশাদ পালিয়ে যায়, কমিটির সিদ্ধান্তে এরশাদকে খন্ডকালীন শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল। ঘটনার পর তাকে বাদ দেওয়া হয়েছে।

এ ঘটনার প্রেক্ষিতে এলাকায় চাঞ্চ্যল্যের সৃষ্টি হয়। অভিভাবকরা তাদের প্রতিক্রিয়ায় বলেন একটি মেয়ের ইজ্জতের মূল্য ও শিক্ষা জীবন ধ্বংশের মূল্য কি ২ লক্ষ টাকা ?

সচেতন সমাজ একটি মেয়ের শিক্ষা জীবন ধ্বংশকারী পাষন্ড প্রতারক এরশাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী করে।

আরও পড়ুন

Sunday, November 28, 2021

সর্বশেষ