সরকারী চরের গডফাদার নুরু মেম্বার এক বছরে কামাচ্ছেন দশ কোটি টাকা 

ভোলা প্রতিনিধি : ভোলার আলোচিত চরের গডফাদারের নাম নুরু মেম্বার। তিনি সরকারী-বেসরকারী প্রায় দশ হাজার একর খাস জমির মালিক।  তেতুলিয়া,মঠবারিয়া,ধুলিয়া,ভেলুমিয়া, বাউফল,নতুন চর হোসেন,বাসান চর,কেলাকচুয়া,পাতাবুনিয়া,টেরকার চর,বয়ার চর ও বোরহানউদ্দিনসহ বেশ কয়েকটি চরের স্বঘোষিত মালিক নুরু মেম্বার।  এসব খাস জমি সরকারের মালিকানা থাকলেও রাজস্ব পাচ্ছেনা  সরকার। দুই উপজেলার এসিল্যন্ডকে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ম্যানেজ করে নুরু মেম্বার এক বছরে কামিয়ে নিচ্ছে প্রায় ১০ কোটি টাকা। অনুসন্ধানে জানাগেছে, ভোলার দক্ষিণ দিঘলদী ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার নুরু দীর্ঘ  বছর ধরে ভেলুমিয়া ইউনিয়নের ৭০০ একর খাস জমি, বয়ার চরের ৪০০০ একর খাস জমি, টেরকার চরের নতুন জেগে ওঠা ৮০০০ একর খাস জমিসহ সরকারী-বেসরকারী ভাবে প্রায় দশ হাজার একর জমি দখল করে বছরে প্রায় দশ কোটি টাকা কামিয়ে নিচ্ছে । স্থানীয়রা জানান, প্রতিদিন  -দৌলতখান -বোরহানউদ্দিন, তজুমুদ্দিনসহ বিভিন্ন জায়গা থেকে কোটি টাকার মূল্যের বাগদা রেনুপনাা নুরু মেম্বারের নেতৃত্বে বরিশাল ও খুলনাসহ বিভিন্ন জায়গায় পাচার করছে। তার ইশারার বাইরে তেতুলিয়া নদীতে মাছ ধরা নিষেধ জেলেদের। আবার মাছ ধরার অনুমতি আছে চাঁদা দিয়ে। তার কাছে শত শত মানুষ জিম্মী। নাম প্রকাশ না করার শর্তে জেলেরা অভিযোগ করেছেন, বিভিন্ন এলাকা থেকে গরু মহিষ চুরি করে এনে এই চরে রেখে তা বিক্রি করে। এসব কাজে তার একাধিক ক্যডার আছে। এর মধ্যে  কামাল, লিটন, জমাল,ভুট্টু,বশির, নাগর,ভুট্টু, বসির,ডাকাতসহ২৫/৩০ জন রয়েছে।   সফি মেম্বারসহ বেশ কয়েকজন ব্যক্তি  জানান,চরে নুরু মেম্বারের ভয়ে কেউ মহিষ গরু পালতে পারছেনা। বর্তমানে তার এক ক্যডার কামাল অস্রসহ আটক হয়ে জেলহাজতে রয়েছে। এদিকে নুরু মেম্বার বছেরর পর বছর সরকারের কোটি কোটি টাকা রাজস্ব ফাকি দিয়ে চর দখলসহ নানা অপরাধ সংঘটিত করলেও তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা  নিচ্ছনা প্রশাসন। সরকারী দলের প্রভাবশালী ব্যক্তির ছত্রছায়ায় নুরু মেম্বার অবৈধ ভাবে চর দখল করায়  ভুক্তভোগী মানুষ তার অত্যাচারের হাত থেকে বা্ঁচতে প্রশাসনের সহযোগীতা কামনা করেছেন । এ ব্যপারে নুরু মেম্বার জানান,চর আমি মাত্র দেখাশুনা করি। মুলত চেয়ারম্যান বিষয়টি  নিয়ন্ত্রণ  করেন।

আরও পড়ুন

Sunday, November 28, 2021

সর্বশেষ