বন্যার আশঙ্কায় ভোলায় ৮ কন্ট্রোল রুম : সরকারি কর্মকর্তাদের ছুটি বাতিল

ভোলা প্রতিনিধি ॥ উত্তরাঞ্চলের পর দক্ষিণাঞ্চলে বন্যা হতে পারে এমন আশঙ্কায় ভোলায় কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে ব্যাপক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে বন্যা মোকাবেলায় জেলার সাত উপজেলায় সর্তক করা হয়েছে। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকেও সকল কর্মকর্তাদের ছুটি বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে বলে জানান জেলা প্রশাসক মোহাং সেলিম উদ্দিন।
ভোলা কৃষি সম্প্রসার বিভাগের উপ পরিচালক প্রশান্ত কুমার সাহা সাংবাদিকদের জানান, বন্যা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের জন্য ইতিমধ্যেই কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে জেলার ৭ উপজেলায় মোট তাদের ৮টি কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। সেখান থেকে ইতিমধ্যে বন্যা পরিস্থিতির পর্যবেক্ষণের কাজ শুরু হয়েছে।
কৃষি বিভাগ জানিয়েছে, ভোলায় ফসলের মাঠে এ মুহূর্তে আউশ রোপনের কার্যক্রম চলছে অন্যদিকে আমন ঘরে তোলার সময় হলেও গত কয়েকদিনের ভারি বর্ষণ এবং বৈরী আবাহাওয়ার কারণে সকল কার্যক্রমভাবে ব্যাহত হচ্ছে। বন্যায় ভেসে যেতে পারো কয়েক কোটি টাকার ফলস। এ অবস্থায় প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে।
ভোলা আবহাওয়া অফিসের অবজারভার মাহাবুব হোসেন জানান, গত ৩/৪টি জেলায় শতাধিক মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। প্রতিদিনই ভারি বর্ষণ হচ্ছে। তবে আবহাওয়া অধিদফতরের আবহাওয়াবিদ মোঃ আবুল কালাম মল্লিক বলেন, আগামী ২৪ ঘণ্টা পর বৃষ্টি বরিশাল অঞ্চলের ভারি বর্ষণ কমে যেতে পারে, তবে ভারতীয় পানি নেমে নামার সময় কিছু এলাকা প্লাবিত হতে পারে।
ভোলার জেলা প্রশাসক মোহাং সেলিম উদ্দিন জানান, বন্যা মোকাবেলায় আমরা প্রস্তুতি নিয়েছি। পর্যাপ্ত খাদ্যশস্য মজুদ রয়েছে। এ ছাড়া আমরা সরকারি কর্মকর্তাদের ছুটি বাতিল করেছি।
এদিকে, গত কয়েকদিন ধরে ভারি বর্ষণে বাঁধের ভেতর ও বাইরের বেশ কিছু এলাকা প্লাবিত রয়েছে। এতে আউশ ক্ষেত ডুবে আছে। ফলে ফসল ঘরে তোলা নিয়ে চরম দুশ্চিন্তায় হাজার হাজার কৃষক। অন্যদিকে রোপন করা সম্ভব হচ্ছে না আমন ধান।

আরও পড়ুন

Tuesday, November 30, 2021

সর্বশেষ