লামাতে হিন্দুদের বড় ধর্মীয় দুর্গোৎসব উদযাপন অনুষ্ঠান পালন।

চাইথোয়াইমং মারমা রৌদ্র বান্দরবান জেলা প্রতিনিধি। লামা কেন্দ্রীয় হিন্দু মন্দিরে অায়োজনের উদ্যেগে মা পবিত্র শারদীয় দুর্গোৎসব পালন করা হয়। উক্ত অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন লামা কেন্দ্রীয় হিন্দুর মন্দিরে কমিটি সভাপতি বক্তব্য মধ্যে দিয়ে উক্ত অালোচনা অনুষ্ঠান শুরু হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত আছেন পাচঁ বারের সংসদ সদস্য,বান্দরবান জেলায় গরীব দু:খি মেহনতীর পরম বন্ধু অন্যায় প্রতিবাদী কন্ঠসর কৃতিত্ব সন্তান জনাব উশ্যেসিং মারমা বীর বাহাদুর এমপি,মহোদয় পার্বত্য চট্রগ্রাম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী বিশেষ অতিথিবৃন্দ রা হচ্ছেন জনাব,দিলীপ কুমার বনিক জেলা প্রশাসক,জনাব সনজিত কুমার রায় পুলিশ সুপার,জনাব সাইফুল ইসলাম বেবি,জনাব,লক্ষীপদ দাশ জেলা পরিষদ সদস্য,জনাব,মো:ইসমাইল হোসেন লামা অাওয়ামীলিগ সভাপতি,মিসেস খিংওয়ানু লামা উপজেলার নির্বাহী অফিসার, বিশিষ্ট দানবীর ব্যবসায়ী বাবু কাজল কান্তি দাশ মিসেস পারুল ইসলাম জেলা পপরিষদ সদস্য সহ বিভিন্ন ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতানেত্রি,স্থানীয় এলাকায় সাধারণ জনগন নারী পুরুষ পূর্জা মন্ডলের ধর্মপ্রান কমিটি পূজাপূজারীবৃন্দ সহ উপস্থিত ছিলেন।লামা কেন্দ্রীয় পূজা মন্ডলের সভাপতি বক্তব্য মধ্যে দিয়ে উক্ত অালোচনার অনুষ্ঠান শুরু হয়,তিনি বিগত বছরে তুলনায় এবছরে লামা কেন্দ্রীয় হিন্দু মন্দিরে ঝাঁকজমট মধ্যে দিয়ে পবিত্র মা দুর্গোৎসব রং বেরঙের পূজা মন্ডলের সাজিয়ে পালন করতে পেরেছি।সবাই পবিত্রতা সন্মান রেখে দুর্গোৎসব পালনের জন্য স্থানীয় এলাকার বিভিন্ন মহল গন্যমান্য ব্যক্তি বর্গ,সাধারণ জনগণ,রাজনৈতিক নেতানেত্রি সহ বিভিন্ন ধর্ম প্রাণের লোকদের কাছ থেকে সাহায্য সহযোগিতায় করার জন্য অাহবান জানাই।যাতে সুন্দর পরিবেশের মধ্যে দিয়ে পাচঁ দিন ব্যাপী পূজা অনুষ্ঠান শেষ করতে পারি।তারপর বান্দরবান মেয়র সাইফুল ইসলাম বেবি বলেন,বাংলাদেশ সরকার সব ধর্মের কে সুস্থ ভাবে পালন করার জন্য অাইন শৃংখলা বাহিনীদের প্রতি সতর্ক নিয়োজিত দায়িত্ববান হওয়ার ও সঠিক ভাবে পালন করার নির্দেশ দিয়েছেন।যাতে কোন কিছু বার্মায় রোহিঙ্গা দের ইস্যু নিয়ে কোন কিছু অপ্রিতীকর ঘটনায় ঘটাতে না পারে সর্তক অবলম্বন অাছে।সেচ্ছাসেবক ভাই ও স্থানীয় সাধারণ জনগনরা উক্ত অনুষ্ঠান কে সাফল্য মন্ডিত শেষ করার জন্য অনুরোধ করেন।তিনি পূঁজা কমিটি হাতে পঞ্চাশ হাজার টাকা অনুদান দেন।সব সময় অামরা বর্তমান ও অাগামীতে জনগনের পাশে থাকব। লামা থানা অাওয়ামিলীগ মো:ইসমাইল হোসেন বক্তব্য রাখেন,এই সরকার সব সময় জনগন দু:খি গরীবের পাশে অাছে বা ভবিষ্যৎ তে পাশে থাকবে।যার যার ধর্ম সঠিক ভাবে শৃংখলা ভাবে পালন করতে পারি সবার কাছে ওলামা এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা কাছ থেকে অাশা প্রত্যাশায় করছি।অামরা সব সময় জনগনের পরম বন্ধু হিসেবে সুখে দু:খে বিপদে অাপদে সব সময় পাশে থাকতে সচেস্ট অাছি বা থাকব বলে  বত্তব্য শেষ করেন।উক্ত অনুষ্ঠানেরর বক্তব্য পেশ করেন,লক্ষীপদ দাশ জেলা পরিষদ সদস্য তিনি জানান অামাদের বড় ধর্মীয় উৎসব হচ্ছে শারদীয় দুর্গোৎসব সারাদেশব্যাপীসহ বান্দরবান জেলাতে সুন্দর পরিবেশের মধ্যে দিয়ে অানন্দ সাথে পালন শেষ করতে চাই।তাই সবাইকে সহযোগিতায় করার জন্য অাহবান জানাই।লামা কেন্দ্রীয় পূূঁজা কমিটিকে পঞ্চাশ পিচ শাড়ি প্রদান করেন।বাবু কাজল দাশ বলেন,সবাই শান্তি শৃংখলা বজায় রেখে অনুষ্ঠান যাতে শেষ করতে পারি। এলাকার বাসী কাছ হতে বিনীত ভাবে অনুরোধ করছি।এদেশের যার যার ধর্মের মানুষরা সুস্থভাবে ধর্মীয় পালন করি বা করতে চাই।বেশির ভাগ লামা জেলা প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানাই।সব সময় অাইন শৃংখলা সহযোগিতায় করায় লামা পূঁজা কমিটি পক্ষে হয়ে অভিনন্দন জানাই।অক্লান্ত পরিশ্রমের মধ্যে দিয়ে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে। উক্ত অনুষ্ঠানের বিভিন্ন মেডিয়া ভাইরা উপস্থিত ছিলেন।এতে অারো বক্তব্য রাখেন, জেলা পুলিশ সুপার জনাব,সনজিত কুমার রায় তিনি বলেন বান্দরবান জেলাতে হিন্দুদের বড় পবিত্র ধর্মীয় অনুষ্ঠান জেলা সদর ছাড়া প্রতিটি উপজেলাতে এক সাথে দুর্গোৎসব শারদীয় পূঁজা পালন করে যাচ্ছে। যাতে বার্মায় হতে অাগত রোহিঙ্গা দেরকে নিয়ে অপ্রিতীকর ঘটনায় ঘটাতে না পারে।সেদিকে অাইন শৃংখলা পুলিশ বাহিনীরা সর্তক তৎপরতা জোরদার করা হয়েছে।যাতে কোন মতে অরাজৈতক সৃস্টি করতে না পারে। স্থানীয় সাধারণ জনগন,উপজেলার প্রশাসন,পূঁজা মন্ডলের সেচ্ছাসেবক দল,পূঁজা কমিটি বৃন্দ সহ অত্র রাজনৈতিকবৃন্দরা সহযোগিতায় এগিয়ে অাসার জন্য অাহবান করেন।এতে বক্তব্য রাখেন,জেলা প্রশাসক জনাব,দিলীপ কুমার বণিক জানান,সারাদেশব্যাপীসহ বান্দরবান জেলাতে হিন্দু ধর্মীয়দের বড় উৎসব শারদীয় দুর্গোৎসব এক সাথে পালন করে যাচ্ছে। সুতরা কেউ রোহিঙ্গা দের কে কেন্দ্র করে কোন কিছু অপ্রিতীকর ঘটনায় ঘটাতে না করতে পারে সেদিকে অাইন শৃংখলা পুলিশ বাহিনী সহ তৎপরতা জোরদার করা হয়েছে।বাংলাদেশের হিন্দু ধর্ম বৌদ্ধ ধর্ম,খ্রিষ্টান ধর্ম, ঈদসহ বিভিন্ন ধর্মীয় যথাযথভাবে উৎসব পালন করে থাকে।সবাইকে সাহায্য সহযোগিতায় করার জন্য বেশির ভাগ স্থানীয় জনগণ সমাজ সেবক সচেতন ব্যক্তিরা এগিয়ে অাসার জন্য অাহবান জানাই।তিনি জেলা প্রশাসন পক্ষ হতে পূঁজা মন্ডলি কমিটিকে ১টন চাল বরাদ্দ দেন।শেষান্তে পার্বত্য চট্রগ্রামের মানীয় প্রতিমন্ত্রী জনাব,উশ্যেসিং মারমা বীর বাহাদুর এমপি মহোদয় বলেন,শারদীয় দুর্গোৎসব উপলক্ষে মা দূর্গা পূঁজাকে শরণ করে শুরু করেন, মায়ের গানের শুর দিয়ে বক্তব্য পেশ করেন,মা ছাড়া পৃথিবীতে অধম মায়ের পথতলে সবাই থাকতে চাই।মায়ের হৃদয় এত বড় বারবার অাঘাত করে মায়ের অাকৃস্থ অাকুল ভরে যায়।সকল বিশ্বের মানুষ শান্তিতে বসবাস করে যেতে চাই।সন্ত্রাসীরা কোন বন্ধু বান্ধবী আত্নীয় হতে পারেনা। তারা সমাজ বা দেশের জাতির শত্রু।তাদেরকে অাশ্রয় প্রশ্রয় দিয়ে যারা দিয়ে তাদেরকে এই সরকার ছাড় দেয়া হবেনা।প্রধানমন্ত্রী সব সময় বলেন সন্ত্রাসীদেরকে বাংলার মাটিতে কোন স্থান দেয়া হবেনা।অামাদের অাইন শৃংখলা বাহিনীরা রুখে দাড়াতে বা মোকাবেলায়তে সক্ষম অাছি।সবাইকে সাহায্যে সহযোগিতায় সন্ত্রাসী বিরুদ্ধের মোকাবেলা করার জন্য অাহবান জানাই।বাংলাদেশের যার যার ধর্মীয় উৎসব বৌদ্ধ ধর্মের প্রবারণা পূর্নিমা,হিন্দুদের দুগোৎসব,খ্রিষ্টান দের বড়দিন,যথাযথ পালন করে থাকি।উৎসবে কোন কিছু অপ্রিতীকর সন্ত্রাসী রা  ঘটাতে না পারে সেদিকে সরকার সব সময় পাশে অাছি। অাগামীতে অারো সাহায্যে সহযোগিতায় করে যাবে বলে মাননীয় প্রতিমন্ত্রী সবার উদেশ্য বলেন ওঅবহিত করেন।অামরা এই দেশকে লাখো শহীদের লক্ষের রক্তের বিনিময়ে সাধীনতা অর্জন করেছি। অামরা মুক্তির যোদ্ধের চেতনাকে বিশ্বাস করি ও শ্রদ্ধেয় সাথে শরন করি। তারা অামাদের নেই অমর হিসেবে বেচেঁ অাছে।তিনি অারো বলেন সুন্দরকে অসু ন্দর পশুদের মতো অাচারন না করে গুরুজন প্রতি শ্রদ্ধা শীল রাখা।দানবীর কাজল বক্তব্য কে পেশ করেন সে একজন বান্দরবান জেলায় অন্যতম বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হিসাবে বিভিন্ন দান করে যাচ্ছেন। এই উৎসব পাচঁ দিনব্যাপী যথাযথভাবে সুশৃংখলা বজায় পূঁজা চলবে।প্রথম ভালো যার,শেষ ভালো তার এই। স্লোগানকে সামনের রেখে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে।ভলান্টিয়ার ভাইদের কে সতকভাবে দায়িত্ব নিয়োজিত থাকার জন্য পরামর্শ দেন।ভলান্টিয়ার বিসজর্ন দিয়ে যথাসময়ে ভিটামিন ঘাটতি পূরনের জন্য ব্যক্তিগত ভাবে পঞ্চাশ হাজার অনুদান দেন  মন্রী মহোদয়।মন্ত্রী মহোদয় লামা অাওয়ামীলিগ সভাপতি জনাব ইসমাইল হোসেন প্রতি বলেন,সে যাবতীয় সহযোগিতায় সাহায্যে পূরণ করে যাবে বলে মন্তব্য করেন।মায়ের কুলে সবাই বড় হয়েছি মায়ের সাথে কোন তুলনায় করা যায় না।অামরা এ দেশের জ জন্মভূমি এদেশ কে অামরা সবাই ভালোবাসি।মায়ের মাতুভাষাকে অামরা শ্রদ্ধেয় সাথে বজায় রাখতে হবে।এমপি অামি রাজনৈতিক বক্তব্য দিতে চাইনা। শুধু এই টুকু দেশ সমাজ জাতি যার যার ধর্মকে শ্রদ্ধেয় পালন ওভালোবেসে যেতে হবে।মন্ত্রী বলেন অাযানের সময় অাধা ঘন্টা মত বিরতি রেখে অাবার অনুষ্ঠান চালিয়ে যাওয়ার জন্য পরামর্শ দেন।যার যার ধর্ম তার তার কাছে বড়ই বিষয় হিসেবে মনে করি।সবাই অান ন্দ সাথে উপভোগ করে ছোট বড় প্রাণ ভরে হাসি খুশি করে অনুষ্ঠান কে সহায়তা করে যেতে হবে সবাইকে।যতদিন পূঁজা উদযাপন চলবে ততদিন অাইন শৃংখলা ও সেচ্ছাসেবক ভাইরা তৎপর দেখা শুনা করবে ও সুস্থ ভাবে পরিচালিত করে যাতে এই লামাতে দুগোৎসব শেষ করতে পারি। সে ব্যাপারে ও অাবার মন্ত্রী মহোদয় সবার সামনের এ কথা মেডিয়া কে জানান।অামরা সবাই বাংলাদেশী এদেশকে উন্নয়ন দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে।এ দেশকে সন্ত্রাসী হাতে কেউ তুলে দিতে চাই না।সবাইকে সজাগ থাকতে সবার প্রতি অাহবান জানাই।অাগামী দিনের এই শেখহাসিনা সরকার চাই বলে তিনি মন্তব্য ব্যাখা করেন।শেষান্তে মন্ত্রী মহোদয় সবাইকে শান্তি শৃংখলা মধ্যে দিয়ে দুগোৎসব শেষ করতে পারি সবার কাছে অাবার ও শারদীয় পবিত্র দুর্গা মা শুভেচ্ছা জানিয়ে বক্তব্য শেষ করেন।

ছবি: লামা কেন্দ্রীয় হিন্দু পূজা মন্দির হতে সন্ধ্যা তোলা।

আরও পড়ুন

Thursday, January 27, 2022

সর্বশেষ