পাবনার ভাঙ্গুড়ায়১৪ লাখ টাকা আমানত নিয়ে এনজিও উধাও !

পাবনা জেলা প্রতিনিধি :পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলায় ‘জনকল্যাণ সংস্থা’ নামের একটি বেসরকারি সংস্থা (এনজিও) সহজ কিস্তিতে লাখ লাখ টাকা ঋণ দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে প্রায় ১৪ লাখ টাকা নিয়ে উধাও হয়েছে বলে
অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই এনজিওর কর্মকর্তারা এলাকায় মাত্র তিন দিন অবস্থান করে এ টাকা হাতিয়ে নেন।
ভুক্তভোগী লোকজন ও এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ভাঙ্গুড়া উপজেলার ভেড়ামারা গ্রামের
আফজাল হোসেনের বাড়িতে ১৬ মার্চ শুক্রবার ওই এনজিওর শাখা ব্যবস্থাপক শফিকুল ইসলাম ও অন্যান্য কর্মকর্তারা একটি ঘর ভাড়া নেন। এরপর তিন দিন ধরে তারা সহজ কিস্তিতে লাখ টাকা
ঋণ দেওয়ার কথা বলে শতাধিক নারী- পুরুষের কাছ থেকে ১০ হাজার ও ২০
হাজার করে প্রায় ১৪ লাখ টাকা আমানত সংগ্রহ করেন। সোমবার
জামানতকারীদের মধ্যে ঋণ বিতরণের কথা ছিল। কিন্তু লোকজন ওই দিন
সকালে এসে দেখেন, এনজিওর কর্মকর্তারা নেই।
ভেড়ামারা ও পাথরঘাটা গ্রামের হাবিবুর, বাকি, আইয়ুব, রেজাউল,
মোজাম্মেল হকসহ অনেক ভুক্তভোগী বলেন, এনজিও’র কর্মকর্তারা তাদের
জানায় ‘মাত্র তিন দিন আগে আমানত হিসেবে ১০ হাজার জমা করলে ১ লাখ
এবং ২০ হাজার জমা করলে দুই লাখ টাকা ঋণ পাওয়া যাবে। আমরা সরল
বিশ্বাসে টাকা জমা দিয়েছি। কিন্তু সোমবার ঋণ নিতে এসে দেখি সবাই
পালিয়ে গেছেন।’
স্থানীয় ইউপি সদস্য নুরুল খাঁ জানান, ‘সোমবার সকালে ৫০-৬০ জন দরিদ্র
নারী-পুরুষ ঋণ নিতে এসে এনজিও কর্মীদের উধাও হওয়ার কথা জানতে
পেরে অনেকেই ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন। পরে আমি এসে পরিস্থিতি শান্ত করি।’

পারভাঙ্গুড়া ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হেদায়েতুল হক ঘটনার সত্যতা
নিশ্চিত করে জানান, ‘এ বিষয়ে
ভাঙ্গুড়া থানা পুলিশকে অবগত করা হয়েছে।’
ভাঙ্গুড়া থানার ওসি নজরুল ইসলাম জুয়েল জানান, শতাধিক ভুক্তভোগী
মঙ্গলবার সকালে এসে অভিযোগ দিয়েছে। বিষয়টি গুরুত্বের সাথে
অনুসন্ধান চালানো হচ্ছে।
ভাঙ্গুড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) উম্মুল বাণীন দ্যুতি জানান, এ
বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া
হবে। এ ব্যাপারে কথা বলতে এনজিও কর্মকর্তাদের মুঠোফোনে একাধিকবার
যোগাযোগের চেষ্টা করেও তা বন্ধ পাওয়া যায়। ফলে তাদের কোন বক্তব্য
নেয়া যায়নি।

আরও পড়ুন

Friday, September 24, 2021

সর্বশেষ