পুলিশকে ঢাকার বাসিন্দাদের যেসব তথ্য জানাতে হবে।

নিউজ দেস্ক: তিন বছর পর আবার ঢাকার বাসিন্দাদের তথ্য সংগ্রহ কার্যক্রম শুরু করেছে পুলিশ।
‘নিজে নিরাপদ থাকুন অন্যকে নিরাপদে রাখুন’ – এই প্রতিপাদ্য নিয়ে ‘নাগরিক তথ্য সংগ্রহ সপ্তাহ ২০১৯’ কার্যক্রমটি চলছে ২১শে জুন পর্যন্ত।
এ সময় ঢাকা মহানগরীর ৫০টি থানায় একযোগে নাগরিকদের তথ্য সংগ্রহ ও হালনাগাদ করা হবে।
কেন এই তথ্য সংগ্রহ কার্যক্রম পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, সন্ত্রাস, উগ্রবাদ ও অপরাধের হুমকি থেকে বাসিন্দাদের সুরক্ষিত রাখতে এই তথ্য সংগ্রহ কার্যক্রম।
কিন্তু তিন বছর পরে কেন আবার এই তথ্য সংগ্রহ কার্যক্রম শুরু করছে পুলিশ?
ঢাকা মহানগরীর উপ পুলিশ কমিশনার মোঃ মাসুদুর রহমান বিবিসি বাংলাকে বলছেন’নগরবাসীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্যই এই তথ্য সংগ্রহ কার্যক্রম।”
“পুলিশের কাছে বাসিন্দাদের তথ্য থাকলে কোন অপরাধী যেমন সহজে অপরাধ করার সাহস করবে না, তেমনি কোন ঘটনা ঘটলে আমরা সহজেই অপরাধীদের শনাক্ত করে ব্যবস্থা নিতে পারবো।”
সম্প্রতি ঢাকার পুলিশের ওপর কয়েক দফা বোমা হামলার ঘটনা ঘটে, যেসব হামলার দায় স্বীকার করেছে তথাকথিত ইসলামিক স্টেট বা আইএস।
বিশ্লেষকরা বলছেন, আইএস মতাদর্শীরা পুনরায় সক্রিয় হয়ে ওঠার চেষ্টা করছে। ফলে নগরীর নিরাপত্তা ব্যবস্থায় আরো জোর দিচ্ছে নিরাপত্তা বাহিনী।
এর আগে ২০১৬ সালে হোলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলার পর, যখন দেশজুড়ে জঙ্গি বিরোধী অভিযান চলছিল, তখন প্রথমবার নাগরিকদের এ ধরণের তথ্য সংগ্রহ কার্যক্রম শুরু করে পুলিশ। তাদের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, নিজের নাম পরিচয় লুকিয়ে জঙ্গি বা অপরাধীরা যাতে লুকিয়ে থাকতে না পারে, সেজন্যই এই তথ্য সংগ্রহ কার্যক্রম।

আরও পড়ুন

Tuesday, September 21, 2021

সর্বশেষ