দৌলতখান হাসপাতালের এক্স-রে কক্ষে তালা ঝুঁলছে ১৩ বছর ধরে। 

ভোলা প্রতিনিধি ॥ ভোলার দৌলতখান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দুটি এক্স-রে মেশিন থাকলেও টেকনিশিয়ান না থাকায় মেশিনগুলোর কার্যক্রম চালু করা যাচ্ছে না। এতে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে সাধারণ রোগীদের। ফলে টেকনিশিয়ান না থাকার কারণে দীর্ঘ ১৩ বছর ধরে তালা ঝুলছে এক্স-রে কক্ষটিতে।
হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, ২০০৮ সালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে একটি এক্স-রে মেশিন দেওয়া হয় সরকারিভাবে। মেশিনটি আসার পর থেকে এক বছর চললেও তারপর থেকে টেকনিশিয়ান না থাকায় দীর্ঘ প্রায় ১৩ বছরেও এটি চালু করা হয়নি। চলতি বছরের দিকে সরকারিভাবে আরও একটি ডিজিটাল এক্স-রে মেশিন দেওয়া হলে, সেটিও টেকনিশিয়ান না থাকায় এখনও চালু হইনি। ফলে এক্স-রে কক্ষটি এখন পর্যন্ত তালাবদ্ধ রয়েছে। বর্তমানে টেকনিশিয়ান না থাকায় এটিও নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
হাসপাতালে এক্স-রে করতে আসা এক রোগী জানান, ‘এক্স-রের কোনো ব্যবস্থা না থাকায় জটিল কোনো সমস্যা হলে ডাক্তাররা আমাদের বাইরের কোনো ডায়াগনস্টিক সেন্টারে এক্সে-রে করার জন্য পাঠান। ফলে উন্নতমানের এক্স-রে করতে দ্বিগুণ অর্থ খরচ করতে হয়। আর কত দিন পর এক্স-রে কক্ষটির তালা খুলবে এ প্রশ্ন সচেতন মহলের।
এদিকে, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আনিসুর রহমান বলেন, বর্তমানে ডিজিটাল এক্স-রে মেশিনটিও টেকনিশিয়ান না থাকায় চালু করা যাচ্ছে না। এ বিষয় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জনবলের জন্য চিঠি পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন

Thursday, September 16, 2021

সর্বশেষ