রামগঞ্জে যৌতুকের দাবীতে গৃহবধূর উপর অমানুষিক নির্যাতন

মোঃ আরিফ হোসেন
লক্ষ্মীপুর জেলা প্রতিনিধি

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার ভোলাকোট ইউনিয়নের লক্ষ্মীধরপাড়া দীঘির পুর্ব পাড়ের জয়নাল আবেদীন ব্যাপারী বাড়ির গৃহবধূ রাবেয়া বেগম (২০) এর উপর যৌতুকের দাবীতে গত বুধবার (২২ ডিসেম্বর) গভীর রাতে
তার স্বামী, শ্বাশুড়ি ও দেবর মিলে অমানুষিক নির্যাতন চালিয়ে হত্যার চেষ্টা করে। খবর পেয়ে রামগঞ্জ থানা পুলিশ গুরুতর আহত অবস্থা রাবেয়া বেগমকে উদ্ধার করে রামগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।
সূত্রে জানাযায়, উপজেলার ভোলাকোট ইউনিয়নের লক্ষ্মীধরপাড়া দীঘির পুর্ব পাড়ের জয়নাল আবেদীন ব্যাপারী বাড়ির সিরাজুল ইসলামের ছেলে ইসমাঈল হোসেন বাবু সাথে পাশ্ববর্তী গ্রাম দেবনগর নাপিত বাড়ির আবুল কালামের তৃতীয় মেয়ে রাবেয়া বেগমের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে এরই সূত্র ধরে সরল বিশ্বাসে রাবেয়া বেগম নেশাগ্রস্ত ইসমাঈল হোসেনের হাত ধরে ঘর ছেড়ে পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করে ২০১৯ সালের শুরুতে।
রাবেয়ার বাবা আবুল কালাম শুরুর দিকে ঐ বিয়ে মেনে না নিলেও একপর্যায়ে উভয় পরিবারের মাঝে মিলমিশ হয়। এরপরই শুরু হয় বিভিন্ন দোহাই দিয়ে যৌতুকের দাবী। মেয়ের সুখের কথা চিন্তা করে জামতা ইসমাঈলকে ব্যবসার জন্য সাড়ে তিন লক্ষ দেয়।এরপর যখন চলতি বছরের জানুয়ারী মাসে রাবেয়ার গর্ভথেকে জমজ দুইটি কন্যা সন্তান জম্ম নেয় তখনই শুরু হয় বিশাল অংকের যৌতুক অথবা রাবেয়াকে বিতাড়িত করে দেওয়ার জন্য অমানুষিক নির্যাতন।

সরজমিনে আজ শুক্রবার ৩১ ডিসেম্বর সকালে রাবেয়া বেগম বলেন, আমি বাবা-মায়ের সম্মতি না নিয়ে বিয়ে করেছি তাই বিগত তিন বছরে অনেক নির্যাতন সহ্য করেছি যাহা কাউকে বলতে পারি নাই। আমার স্বামী ইসমাঈল প্রতিনিয়ত নেশা করে এসে আমার উপর অমানুষিক নির্যাতন চালাতো।

রাবেয়ার পিতা আবুল কালাম বলেন, মেয়ের সুখের কথা চিন্তা করে আমি গ্রামীণ ব্যাংক ও ব্রাক ব্যাংক থেকে লোন নিয়ে ইসমাইলকে ব্যবসার জন্য সাড়ে তিন লক্ষ টাকা দিয়েছি। সুখতো হলেই না বরং চৌদ্দ লাখ টাকা যৌতুক দিতে ব্যার্থ হওয়াতে আমার মেয়েকে হত্যার চেষ্টা করে।
হত্যার চেষ্টা ব্যার্থ হয়ে সে লক্ষ্মীধরপাড়া বাজারে এসে তার নিজস্ব পরিচালিত মাইক সার্ভিসিং ও কসমেটিকস সেন্টার ভাংচুর করে আমাদের বিরুদ্ধে মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

স্থানীয় বাজার ব্যাবসায়ী আমিনুল হকসহ অনেকেই বলেন, ২৩ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার ভোরে ইসমাঈল ও তার ভাই সজীব লক্ষ্মীধরপাড়া বাজার মাইক সার্ভিসিং ও কসমেটিকসের তাদের নিজস্ব দোকান শাটার লাগিয়ে তারা নিজেরাই ভিতরে আসবাবপত্র ভাংচুর করে। বিষয়টি তখনই বাজার ব্যবসায়ীদের জানাজানি হয়ে যায়।
স্হানীয় নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য মহসিন মাল বলেন, বিষয়টি অনেক থেকেই ঘটে আসছে তবে ইসমাঈলের পরিবার মামলাবাজ তারা স্হানীয়দের কোন কথা শুনে না।

অভিযুক্ত ইসমাঈলকে খুজে পাওয়া যায় নাই তাবে তার ভাই আবদুল কাদের বলেন, রাবেয়ার উপর নির্যাতন বা মারধরের বিষয়টি সঠিক নয়।

রামগঞ্জ থানার এএসআই জাহাঙ্গীর আলম জানান, আমি ওই এলাকায় কর্মরত ছিলাম বিষয়টি জানার সাথে সাথে আহত রাবেয়াকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করি।তবে তারা মামলা না করায় ব্যবস্হা নিতে পারি নাই।

আরও পড়ুন

Sunday, October 2, 2022

সর্বশেষ