বিয়ের দাবিতে অনশনে প্রেমিকা, পালিয়ে গেলেন প্রেমিক।

নীলফামারী প্রতিবেদকঃ নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার রনচন্ডী কিশামত কবিরাজের বাজার দ্বি- মুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি ফেল করা এক ছাত্রী বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে ৫ দিন থেকে অনশন করেছেন। ৫ নভেম্বর সন্ধ্যা থেকে উপজেলার বড়ভিটা ইউনিয়নের পূর্ব মেলাবর পাঠাগারের ডাংগা এলাকার শ্রীধর চন্দ্র রায়ের পুত্র প্রত্যারক প্রেমিক কমল চন্দ্র রায়ের বাড়িতে অবস্থান নিয়েছেন তিনি।

প্রেমিক কমল চন্দ্র রায় ওই গ্রামের ব্যাংকার মিথুন চন্দ্র রায়ের ছোট ভাই। ভুক্তভোগী ওই ছাত্রী সোনালী রানী রনচন্ডী ইউনিয়নের মধ্য বাপলা সাধু পাড়ার রমানাথ মোহন্তর বড় মেয়ে। কমল চন্দ্র রায় নীলফামারী গভ. কলেজের অনার্সের শিক্ষার্থী। ঘটনার পর প্রেমিক কমল চন্দ্র রায় বাড়ি থেকে পালিয়েছেন।

ওই ছাত্রী জানান, চার বছর ধরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক। প্রেমের ফাঁদে ফেলে প্রেমিক কমল চন্দ্র রায় তাকে একাধিকবার ধর্ষণ করেছে। সম্প্রতি বিষয়টি পরিবার জেনে যায়। এরপর থেকেই সোনালী রানী বিয়ের জন্য চাপ দিচ্ছিলেন। কিন্তু তাতে রাজি হননি প্রেমিক।

 

এখন সেই সম্পর্ক অস্বীকার করছে প্রেমিক। তার পরিবারও এই সম্পর্ক মানতে নারাজ। এই পরিস্থিতিতে বাধ্য হয়েই প্রেমিকের বাড়িতে গিয়ে তিনি অনশন শুরু করেছেন। প্রেমিক বিয়ে না করলে আত্মঘাতি হবেন বলেও জানান ওই স্কুল ছাত্রী।

পলাতক থাকায় এ নিয়ে প্রেমিক কমল চন্দ্র রায়ের মন্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে তার বাবা শ্রীধর বলেন, আমি আমার ছেলের কাছে জেনেছি আমার ছেলের সঙ্গে ওই মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক নেই।

 

রনচন্ডী ইউনিয়নে পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মোকলেছুর রহমানের বিমান জানান, বিষয়টি নিয়ে উভয় পরিবারের মধ্যে আলোচনা চলছে। দুই পক্ষই মীমাংসায় রাজি হয়েছে।

 

এ বিষয়ে কিশোরগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ রাজীব কুমার রায় জানান, বিষয়টি শুনেছি। আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন

Wednesday, December 7, 2022

সর্বশেষ